নীলফামারীর সৈয়দপুরে একাধিক হনুমানের আগমনে তোলপাড়,আতঙ্ক

শাহজাহান আলী মনন : নীলফামারীর সৈয়দপুরে খাদ্য সংকটে পড়ে লোকালয়ে চলে এসেছে জঙ্গলের হনুমান।হঠাৎ করে শহরে বিভিন্ন এলাকায় মুক্ত হনুমান দেখে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।অনেকে কৌতুহল বশতঃ হনুমানগুলোর পিছু নেয়।আবার কেউ কেউ বিভিন্ন খাবার দিয়ে আটকের চেষ্টা করে।এতে ক্ষিপ্ত হয়ে হনুমানেরা এলোপাতারী ছুটাছুটি করায় আক্রমণ বা আচর দেয়ার আতঙ্কও দেখা দেয়।

গত ১৮ জুুন শুক্রবার থেকে এ ঘটনায় সৈয়দপুর উপজেলা জুড়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে।শনিবার (১৯ জুন) শহরের পুরাতন বাবুপাড়া,নিচুুুকলোনী, নিয়ামতপুর সরকারপাড়া ও কয়ানিজপাড়া এলাকায় এবং আগেরদিন শুক্রবার (১৮ জুন) বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের চৌমুহনী ও পার্বতীপুরের বেলাইচন্ডিতে এসব হনুমানের দেখা মিলেছে।কখনো একা আবার কখনো দলবেঁধে ছুটছেন এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায়।

এলাকাবাসী জানায়,হঠাৎ হনুমান দেখে তারা হতবাক হয়েছেন।এলাকাবাসী এসব হনুমানকে খাবার দিচ্ছেন,কেউ ভয়ে তাড়িয়ে দিচ্ছেন।বানরগুলো দ্রুত স্থান ত্যাগ করছে বলে জানান তারা।অনেকে এগুলোকে হনুমান বলছে।কিন্তু কোথা থেকে কেন এবং কিভাবে এগুলো শহরে এসেছে সে বিষয়ে কেউ কিছু বলতে পারছেন না।চৌমুহনী বানিয়াপাড়া এলাকার রহমান (৭০) জানান,আমার জানামত এলাকায় কখনও এভাবে বানর দেখেনি।

কিন্তু হটাৎ করে তাদেরকে দেখে হতবাক হয়েছি।তাদের শরীর দেখে মনে হচ্ছে ক্ষুধার্ত।তাই সাধ্যমত দুটি রুটি টিনের চালায় ছুড়ে দিতেই মুখে নিয়ে অন্যত্র পালিয়ে গেল।একই কথা জানিয়েছে শহরের ক্যান্টনমেন্ট ও বিমানবন্দর সংলগ্ন রেলওয়ে নিচু কলোনী,পুরাতন বাবুপাড়া,নিয়ামতপুর সরকারপাড়া,কয়ানিজপাড়া এলাকার লোকজন।

তারাও এলাকায় হঠাৎ করে বানরের আগমন এবং লোকজন দেখে দ্রুত সময়ে অন্যদিকে চলে যাওয়ার ঘটনার বর্ণনা দেন।নিচু কলোনী এলাকার জাহিদুল ইসলাম জানান,এলাকায় একটি বাদামি রঙের হনুমান দেখা গেছে।ঐ হনুমানকে এক নজর দেখার জন্য উৎসুক মানুষের মাঝে দারুণ কৌতুহলের সৃষ্টি হয়েছে।

শনিবার(১৯জুন) দুপুরে সৈয়দপুর নিচু কলোনী জামে মসজিদের সামনে অবস্থিত উচু মেহগনি গাছে ঐ হনুমানকে দেখা যায়।এই হনুমানটি কোথা থেকে এসেছে তা নিশ্চিত করে কেউ কিছুই বলতে পারছেন না।তবে হনুমানকে দেখার জন্য এলাকার শিশু,কিশোর,কিশোরী,যুবক,যুবতী,বুড়ো বুড়ি সবাই মসজিদ মাঠে এসে ভীড় করছে।

মানুষের উপস্থিতি দেখে হনুমানটি ভয়ে মসজিদের মেহগনী গাছের মাথায় বসে থাকতে দেখা যায়।পরে হনুমানটি গাছ থেকে নেমে শহরের উত্তরে পালিয়ে যায়।এ সময় উপস্থিত এলাকাবাসী জানান,হনুমানটি হয়তো কোন চিড়িয়াখানা থেকে চলে এসেছে অথবা খাবার সন্ধানে লোকালয়ে চলে এসেছে।

পরিবেশ ও পশু-পাখি নিয়ে কাজ করা সেতুবন্ধন যুব উন্নয়ন সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আলমগীর হোসেন জানান,মুলত খাদ্য সংকটে এসব বানর লোকালয়ে চলে এসেছে।যেসব এলাকায় এসব বানরের দেখা মিলছে সেসব এলাকায় আমাদের স্বেচ্ছাসেবীরা কাজ করছেন।যাতে প্রাণিগুলোর কোনো ক্ষতি না হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *