মেহেরপুরে প্রধান সড়কের পাশে অবৈধ পুকুর খনন চলছে,নীরব ভূমিকায় প্রশাসন

কাজল মাহমুদ : মেহেরপুর গাংনী উপজেলার কাজিপুর ইউনিয়নের গোলাম বাজার ঘরামি পাড়া এলাকায় (কাজিপুর প্রাগপুর মেন সড়কের পার্শ্বে) ২০ ফুট গভীরতা করে পুকুর খননের মহোৎসব চলছে।এলাকাবাসীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে,বামন্দী কাজিপুর ধর্মদহ প্রাগপুর এর অসংখ্য যানবাহন চলাচলের একমাত্র প্রধান সড়কের পার্শ্বে অবৈধভাবে রাস্তা দখল করে পুকুর খনন করা হচ্ছে।আর এই পুকুর খননের ফলে ওই স্থানে যেকোনো সময় ঘটতে পারে এক বড় ধরনের দুর্ঘটনা।

কাজিপুর গ্রামের ঘরামি পাড়ার ছয়রদ্দিনের ছেলে মহাব্বত ও আক্তারুজ্জামান লাউড এক মোটা অংকের টাকার বিনিময় একই গ্রামের ঘরামি গষ্ঠীর ১০ জন শরিকানা পুকুরটি পুনঃ খননের নামে মাটি ব্যাবসাহী ক্রয় করে নেয়।পুকুরের মাটি ক্রয় করে নেওয়া মহাব্বত ও আক্তারুজ্জামান লাউড দেখে আমাদের প্রয়োজন মাটি একটু কোনরকম পুকুরটির পাড় সংস্কার করে নিজেদের অধিক টাকার আশায় পুকুরের নিচের অংশের গভীরতা বাড়িয়ে দেয়।আর সেই গভীরতা বাড়ানোর ফলে রাস্তার পাড় থেকে পুকুরের তলদেশ পর্যন্ত প্রায় উচ্চতা দাঁড়ায় ৩০ ফিট।

বিভিন্ন পথচারীরা এই পুকুরের গভীরতা দেখে নিরবে বলে,এই রাস্তা থেকে যদি এই পুকুরের মধ্যে পড়ে যায় তবে আর জীবিত থাকবনা।পুকুর সংলগ্ন এক বাড়ির মালিক জানায়,কি বলবো ভাই বলার আর কিছুই নেই।আমার বাড়ি নিয়ে আমি দুশ্চিন্তায় রয়েছি না জানি কখন আমার বাড়িটি এই পুকুর গিলে খায়।তবে প্রশাসনের উচিত একটি মেন সড়কের পার্শে এত বড় দির্ঘ গভীরতা করে পুকুর তৈরি করা সরোজমিনে দেখে ব্যবস্থা নেওয়া দরকার।

কাজিপুর গ্রামের অবৈধ মাটি ব্যবসায়ী মহাব্বত ও আক্তারুজ্জামান লাউড জানায়,ভাই আমরা পুকুর মালিকদের সাথে কন্ট্রাক করে পুকুরের মাটি কিনে নিয়েছি মাটি যতদূর পাব ততদূর পর্যন্ত ভেকু দিয়ে মাটি উঠিয়ে নেব এবং দাম্ভিকতার সাথে পুকুর গভীর করেছি প্রয়োজনে আরো গভীর করব মরলে জনগণ মরবে সাংবাদিকের কি আসে যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *