বাংলাদেশ ও ভূটানের মধ্যে সহযোগিতার লক্ষে ৪টি সমঝোতা স্মারক সই

কালজয়ী রিপোর্ট : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে মিলিত হয়েছেন বাংলাদেশ সফররত মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মুহামেদ সলিহ।বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার পর প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ে এ বৈঠক হয়।প্রধানমন্ত্রীর সরকারি প্রেস সচিব ইমরুল কায়েস রানা জানান,বেলা ১১টায় মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মুহামেদ সলিহ প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ে আসলে তাকে স্বাগত জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

দুই দেশের প্রধান কিছু সময় একান্ত বৈঠক করেন।পরে দ্বিপক্ষীয় বেঠকে মিলতি হন।এসময় তাদের উপস্থিতিতে দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতার লক্ষে ৪টি সমঝোতা স্মারক সই হয়।দুপুর পৌনে ১টায় প্রধানমন্ত্রী কার্যালয় ত্যাগ করেন মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট।এরমধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতার জন্য যৌথ কমিশনের বিষয়ে একটি সমঝোতা স্মারক ছিল।তাতে স্বাক্ষর করেন বাংলাদেশের পররাষ্টমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন ও মালদ্বীপের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুল্লাহ শহিদ।

দ্বিপক্ষীয় ফরেন অফিস কনসাল্টিংয়ের জন্য মসঝোতা স্মারক সই হয়।এতে দুই দেশের পররাষ্ট্র সচিব স্বাক্ষর করেন।মৎস্য ও পেলেজিক ফিশিংয়ের ক্ষেত্রে সহযোগিতার বিষয়ে সমঝোতা স্মারক সই হয়।এতে বাংলাদেশের মৎস ও প্রানীসম্পদ মন্ত্রী ও মালদ্বীপের অর্থনৈতিক উন্নয়ন মন্ত্রী স্বাক্ষর করেন।পাশাপাশি ২০২২-২০২৫ পর্যন্ত সাংস্কৃতিক বিনিময়ে সহযোগিতার জন্য সমঝোতা স্মারক সই হয়।এতে বাংলাদেশের সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ হাসান ও মালদ্বীপের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুল্লাহ শহিদ সই করেন।

এর আগে বুধবার সকালে বাংলাদেশে এসে পৌঁছান মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মুহামেদ সলিহ।প্রথমে সাভারের স্মৃতিসৌধে মহান মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন তিনি।এরপর ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানান এবং বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর ঘুরে দেখেন।বুধবার বিকেলে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুর্বণজয়ন্তী অনুষ্ঠানে যোগ দেন।

সফরসূচি অনুযায়ী,বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বেঠক ছাড়াও বিকেলে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে একটি বেঠক এবং নৈশভোজের কথা রয়েছে।এরপর রাতেই বাংলাদেশ ছাড়বেন মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *