পটুয়াখালীতে নির্মাণাধীণ পায়রা সেতুতে পলেস্তর ধ্বস,জনমনে আতঙ্ক

সোহাগ হোসেন : বরিশাল-পটুয়াখালী-কুয়াকাটা মহাসড়কে নির্মাণাধীণ অত্যাধুনিক এক্সটাডোজ ক্যাবল বক্স গার্ডার পায়রা সেতুর কাজ শেষ না হতেই আকস্মিক পলেস্তর ধ্বসে পড়ায় জনমনে আতংক দেখা দিয়েছে।ইতোমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পলেস্তর ধ্বসের ছবি ছড়িয়ে পড়ায় নির্মাণ ত্রুটি নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।অপর দিকে সেতুটির পলেস্তর ধ্বসের ছবি তোলায় চিনাদের বাঁধা সৃষ্টিতে সন্দেহ আরও ঘনীভূত হচ্ছে।যথাযথ ভাবে কাজ না হওয়ায় এমন অনাকাঙ্খিক ঘটনা ঘটেছে বলে মনে করছেন অনেকে।

তবে সেতু কর্তৃপক্ষ বলছে এটি তেমন কোন সমস্যা নয়,সামান্য পলেস্তর খসে পড়েছে।অতিরিক্ত চাপে এমনটি ঘটে থাকতে পারে।গত বুধবার (১৭ মার্চ) দুপুরে হঠাৎ করে লেবুখালী ফেরিঘাটের দক্ষিণ প্রান্তের ২নং পিলার সংলগ্ন নির্মাণাধীন পায়রা ব্রিজের পলেস্তর ধ্বসের ঘটনা ঘটে।অন্তত: ২ফুট দৈর্ঘ্য ও দেড় ফুট প্রস্থের পলেস্তর খসে পড়ায় স্থানীয়দের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দেয়।পথচারীদের অনেকেই যে যার মতো ছবি ও ভিডিও করে ফেসবুকে আপলোড দিলে জনমনে আতংক ছড়িয়ে পড়ে।বিষয়টি ইতোমধ্যে ভাইরাল হয়েছে।

পায়রা সেতু প্রকল্প পরিচালক প্রকৌশলী আব্দুল হালিম এ বিষয়ে বলেন,একটি স্প্যানে টেনশন দেওয়ার সময় দুই ফিটের মত জায়গায় নিচের অংশের পলেস্তার ধ্বসে পড়েছে।এটি বড় ধরণের কোন সমস্যা নয়। এমনটি হওয়ার কথা কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে বলেন,এমনটা হওয়ার কথা নয়,কেন ঘটেছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।তিনি আরও বলেন,যারা টেকনিক্যাল বিষয় বুঝেন না,তারাই এটা নিয়ে গুঞ্জন রটাচ্ছে।এ থেকে সবাইকে সর্তক থাকার আহ্বান জানান তিনি।

প্রকল্প পরিচালক আরও বলেন,আমরা মূল ব্রিজের কাজে এগিয়ে আছি।ইতোমধ্যে পায়রা সেতুর নির্মাণ কাজ ৯০শতাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে।বর্ষা ও করোনার কারণে আমরা পিছিয়ে ছিলাম ইতোমধ্যে সেখান থেকে ৩০শতাংশ কাজ অগ্রগতি হয়েছে।২০২১ সালের মধ্যে ব্রিজের সার্বিক কাজ সম্পন্ন করে চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করা হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *