কুমিল্লায় সিটি কাউন্সিলর সাইফুলের বিএনপি ছেড়ে আওয়ামীলীগে যোগদান

সৈয়দ খালেদ হোসেন : কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের ১৫ নাম্বার ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাইফুল বিন জলিল বিএনপি ছেড়ে আওয়ামীলীগে যোগদান করেছেন।গতকাল শুক্রবার বিকালে ৬শতাধিক নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের নিয়ে কুমিল্লা মহানগর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আঞ্জুম সুলতানা সীমা এমপির হাতে ফুলের তৈরী নৌকা উপহার দিয়ে আওয়ামীলীগে যোগদান করেন।

কাউন্সিলর সাইফুল বিন জলিল কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মনিরুল হক সাক্কু গ্রুপের সমর্থক ও জনপ্রিয় নেতা ছিলেন।জানাযায়,শুক্রবার বিকাল ৪টায় ৬মতাধিক নেতাকর্মী ও সমর্থকদের নিয়ে মিছিল সহকারে এমপি সীমার ঠাকুরপাড়াস্থ বাসভবনে যান কাউন্সিলর সাইফুল বিন জলিল।সেখানে তিনি সংসদ সদস্য আঞ্জুম সুলতানা সীমা ও উপস্থিত আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দের সাথে কুশল বিনিময় করেন।

এরপরে এমপি সীমার হাতে ফুলের তৈরী নৌকা উপহার দিয়ে বিএনপি ছেড়ে আনুষ্ঠানিকভাবে আওয়ামীলীগে যোগদান করেন।সেসময় সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে তিনি বলেন,আঞ্জুম সুলতানা সীমা আপার রাজনৈতিক কর্মকান্ডে উজ্জীবিত হয়ে স্বইচ্ছায়,স্বজ্ঞানে আওয়ামীলীগে যোগ দিলাম।আগামীতে আওয়ামীলীগের সকল কার্যক্রম ও রাজনৈতিক কর্মকান্ডে এমপি সীমার সাথে থাকবেন বলে জানান।

এসময় সেখানে আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেষনা উপ কমিটির সদস্য মাসুদ পারভেজ খান ইমরান, মহানগর আওয়ামীলীগ নেতা হাজী মনির,পাপন পাল,যুবলীগ নেতা আবদুর রহমান,গোলাম মোস্তফা শরিফ,মাসুদুল ইসলাম অপুসহ এমপি সীমার অনুসারী উল্লেখযোগ্য সংখ্যক কর্মী সমর্থক উপস্থিত ছিলেন।

সূত্রে জানা যায়,কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের ১৫ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সাইফুল বিন জলিলের পরিবহন ব্যবসা দখলের চেষ্টাকে কেন্দ্র করে গত সোমবার তার গাড়ী ভাংচুরের ঘটনা ঘটে।নগরীর চকবাজার বাস টার্মিনালের সামনে এ হামলা চালায় দূবৃত্তরা।এঘটনায় কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মনিরুল হক সাক্কুর কা্ছে প্রতিকার চেয়েও পাননি কাউন্সিলর সাইফুল বিন জলিল।

ক্ষমতাসীন দলের এমপি বাহার সমর্থকদের সাথে মেয়রের সখ্যতার কারনে তিনি প্রতিকার করতে অপারগতা প্রকাশ করেন বলে জানিয়েছেন কাউন্সিলর সাইফুল।এরপর সাইফুল তার ৬শতাধিক কর্মী সমর্থকদের নিয়ে আওয়ামীলীগের অপর অংশের সাথে রাজনীতি করার সিদ্ধান্ত নেন।

উল্লেখ্য,কাউন্সিলর সাইফুল বিন জলিল দীর্ঘ সময় কুমিল্লা বিএনপির এক অংশের নেতা সিটি মেয়র মনিরুল হক সাক্কু গ্রুপের নেতা ছিলেন। কাউন্সিলর সাইফুল বিন জলিলের বাবা আব্দুল জলিল স্বাধীনতার পর কুমিল্লা পৌরসভার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *