বাগেরহাটে ১৯টি হরিণের চামড়াসহ দুই পাচারকারী আটক

ইসমাইল হোসেন লিটন : বাগেরহাটের শরণখোলায় বাঘের চামড়া উদ্ধারের তিন দিন পর একই এলাকা থেকে ১৯টি হরিণের চামড়াসহ দুই পাচারকারীকে আটক করেছে পুলিশ।শনিবার (২৩ জানুয়ারি) রাত পৌনে দুইটার দিকে শরণখোলা উপজেলার রায়েন্দা বাসস্টান্ড সংলগ্ন মনিরের ঘরের পাটাতন থেকে বাগেরহাট জেলা গোয়েন্দা পুলিশের একটি টিম এই চামড়া উদ্ধার করে।আটককৃতদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে আদালতে সোপর্দের প্রস্তুতি চলছে।

আটককৃতরা হলেন,শরণখোলা উপজেলার রাজৈর গ্রামের মোঃ মতিন হাওলার ওরফে মতি কাজীর ছেলে মোঃ ইলিয়াস হাওলাদার (৩৫) ও বাগেরহাট সদর উপজেলার ভদ্রপাড়া গ্রামের মোঃ মোশারেফ শেখের ছেলে মোঃ মনিরুল ইসলাম শেখ (৪৮)।মনিরুল ইসলাম বর্তমানে শরণখোলা উপজেলার রায়েন্দা বাসস্টান্ড এলাকায় বসবাস করেন।তার বাসার পাটাতন থেকে এই চামড়া উদ্ধার করে পুলিশ।

ইলিয়াস হাওলাদারের পিতা মতিন কাজী দীর্ঘদিন ধরে সুন্দরবনের বণ্যপ্রাণীর চামড়া,মাথাসহ দেহের অঙ্গপ্রত্যঙ্গের ব্যাবসা চালিয়ে আসছে।তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় বনবিভাগ ও শরণখোলা থানায় একাধিক মামলা হয় এবং কয়েকবার হাজতবাসও করেন।শনিবার দুপুরে বাগেরহাট পুলিশ সুপার পঙ্কজ চন্দ্র রায় প্রেসব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানান।

পুলিশ সুপার বলেন,গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের সদস্যরা জানতে পারে মনিরের বাসায় হরিণের চামড়া বিক্রি হচ্ছে।গভীর রাতে গোয়েন্দা পুলিশের সদস্যরা মনিরের বাসায় অভিযান চালিয়ে মোঃ ইলিয়াস হাওলাদার ও মোঃ মনিরুল ইসলামকে আটক করে।এসময় অজ্ঞাতনামা আরও কয়েকজন পালিয়ে যায়।

পরে মনিরের বাসার পাটাতন তল্লাশি করে দুইটি ব্যাগ থেকে ১৯টি চামড়া উদ্ধার করে পুলিশ সদস্যরা।মামলা দায়ের পূর্বক চামড়া ও আটককৃত পাচারকারিদের আদালতে সোপর্দ করা হবে।এর আগে গত ১৯ জানুয়ারি রাত ৮টায় একই এলাকা থেকে র‌্যাব-৮ ও বনবিভাগ যৌথ অভিযান চালিয়ে একটি বাঘের চামড়াসহ গাউস ফকির (৫২) নামের এক পাচারকারীকে আটক করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *